প্যারালিগ্যাল প্রশিক্ষণ চট্টগ্রাম জেলা শাখা

By on November 5, 2015
BMP Legal Aid 1

১৭.১০.২০১৫ তারিখ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদের উদ্যোগে চট্টগ্রাম জেলা শখার আয়োজনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কার্যালয়ে চট্টগ্রামে প্যারালিগ্যাল প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত প্রশিক্ষণ সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপিকা লতিফা কবির। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদের ডিরেক্টর লিগ্যাল এডভোকেসি এন্ড লবী অ্যাড. মাকছুদা আখতার ও সিনিয়র আইনজীবী অ্যাড. দীপ্তি রানী সিকদার চট্টগ্রাম জেলা শাখার সংগঠকদের উক্ত প্রশিক্ষণ প্রদান করেন এবং রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ (জুনিয়র আইনজীবী) প্রশিক্ষণে সার্বিক সহায়তা প্রদান করেন। প্রশিক্ষণে চট্টগ্রাম জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সুগতা বড়–য়া, চট্টগ্রাম জেলা শাখার ৯ জন তরুণী সদস্যসহ মোট ৩৭ জন অংশগ্রহণ করে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপিকা লতিফা কবির। তিনি সকলকে মনোযোগ দিয়ে প্রশিক্ষণ আত্মস্থ করার আহ্বান জানান।
উক্ত আলোচনার পর অ্যাড. দীপ্তি রানী সিকদার প্রশিক্ষণার্থীদের নিকট হতে প্রত্যাশা যাচাই করেন। অংশগ্রহণকারীরা- (১) বিয়ের পর গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়ীতে মানসিক নির্যাতন; (২) বিয়ের আগে ও পরে স্ত্রীর নিকট যৌতুক দাবী; (৩) বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে আইনী বিধান; (৪) অবৈধ মাদক বন্ধে করণীয়; (৫) নারীর সম্পত্তির অধিকার ইত্যাদি বিষয়ে জানতে চান।
প্রশিক্ষণের শুরুতে অ্যাড. মাকছুদা আখতার প্যারালিগ্যাল প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্য এবং বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রকৃতি, কার্যক্রম সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেন।
এরপর অ্যাড. দীপ্তি রানী সিকদার বিভিন্ন সম্প্রদায়ের প্রচলিত পারিবারিক আইন, আইনে অধিকার অর্থাৎ বিভিন্ন সম্প্রদায়ের বিবাহ, কাবিননামা রেজিষ্ট্রিকরণ, আইনসম্মত বিবাহ-বিচ্ছেদের পদ্ধতি, দেনমোহর, স্ত্রী ও সন্তানের ভরনপোষণ সম্পর্কিত বিধিবিধান, সন্তানের অভিভাবকত্ব, স্ত্রীধন, সম্পত্তির উত্তরাধিকার বিষয়ে আইনগত বিধিবিধান আলোচনা করেন। তিনি বেআইনী হিল্লা বিয়ে প্রতিরোধ, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রস্তাবিত অভিন্ন পারিবারিক আইনের বিধানাবলী তুলে ধরেন। তিনি সরাসরি অভিযোগ গ্রহণের পদ্ধতি, কাউন্সেলিং, অপরপক্ষকে নোটিশ প্রেরণ, পারিবারিক সমস্যার ক্ষেত্রে সালিশী মীমাংসার পদ্ধতি, আপোষনামা লিখিতকরণ, সালিশের ডকুমেন্ট প্রদানের পদ্ধতি, নারী নির্যাতনের ঘটনায় সালিশ না করা, তথ্যানুন্ধান, আলাদা আলাদাভাবে রেজিষ্ট্রারে তথ্য সংরক্ষণ, ফর্মেট অনুযায়ী জেলায় রিপোর্ট প্রেরণসহ বাস্তব কাজের বিষয়ে আলোচনা করেন।

BMP Legal Aid 2
উক্ত আলোচনার পর অ্যাড. মাকছুদা আখতার পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ এর অধীন মামলা দায়ের ও সুরক্ষা আদেশ, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ (সংশোধিত ২০০৩) এ ধর্ষণ, গণধর্ষণ, পাচার, অপহরণ, যৌতুকের জন্য নির্যাতন, যৌন হয়রানি; এসিড অপরাধ দমন আইন, ২০০২, পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১২ এবং বেআইনী ফতোয়ার ঘটনা প্রতিরোধে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ এবং আপীল বিভাগের রায়, যৌন হয়রানি ও নিপীড়নের ঘটনা প্রতিরোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কর্ম প্রতিষ্ঠানে অভিযোগ কমিটি গঠন, বাল্য বিবাহ, অনুমতি ব্যতীত দ্বিতীয় বিবাহ প্রতিরোধে আইনের বিধান ও শাস্তির বিষয়ে আলোচনা করেন। তিনি নারী নির্যাতনের ঘটনায় এজাহার দায়ের, সাধারন ডায়েরী, ভিকটিমের চিকিৎসা, ধর্ষণের ক্ষেত্রে মেডিকেল পরীক্ষা, আন্দোলনমুখী কার্যক্রম, প্রশাসনকে স্মারকলিপি প্রদান, আলামত সংরক্ষণ, জব্দতালিকা, ম্যাজিষ্ট্রেটের নিকট ভিকটিমের জবানবন্দী, ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬১ ধারায় জবানবন্দী, আত্মহত্যা এবং হত্যার ক্ষেত্রে ময়নাতদন্ত এবং ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি), বার্ণ ইউনিট বিষয়ে আলোচনা করেন।

BMP Legal Aid 3
উপরোক্ত আলোচনা শেষে অ্যাড. মাকছুদা আখতার প্রশিক্ষণার্থীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। প্রশ্নোত্তরপর্ব শেষে প্রশিক্ষণ সভার সভাপতি অধ্যাপিকা লতিফা কবির প্রশিক্ষণলব্ধ অভিজ্ঞতা বাস্তবে প্রয়োগের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কার্যক্রম জোরদার করাসহ আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি প্রশিক্ষণ সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।
অর্জন: ৯ জন তরুণী সদস্যসহ মোট ৩৭ জন সংগঠক প্রশিক্ষণ গ্রহণের ফলে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে প্রচলিত আইনের বিধি-বিধান ও বাস্তব কাজ বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা লাভ করেছেন।

About mparishad

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>