বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ৪৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিক উদযাপন

By on May 7, 2015
BMP Organization 2

১৮ এপ্রিল ২০১৫ শনিবার বিকাল তিনটায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ৪৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিক উপলক্ষে ’নারীর ক্ষমতায়ন ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় চাই তরুণ প্রজন্মের অংশীদারিত্বে শক্তিশালী নারী আন্দোলন’-এই শ্লোগান নিয়ে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন এবং জাতীয় পতাকা, সংগঠনের পতাকা ও ৪৫ টি বেলুন উত্তোলন, রোকেয়া সদনের শিক্ষার্থীদের সঙ্গীত পরিবেশন এবং কবিতা আবৃত্তির মধ্য দিয়ে সংগঠনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্বোধনী অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা.ফওজিয়া মোসলেম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম, ইউএনইউমেনের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ মিজ. ক্রিস্টিন সুশান হান্টার, সাংবাদিক শাহানাজ মুন্নী। ৪৫টি মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন হয়।

সভায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাখী দাশ পুরকায়স্থ । ঘোষণাপাঠ করেন সংগঠনের যুগ্ম  সাধারণ সম্পাদক সীমা মোসলেম। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সংগঠন সম্পাদক উম্মে সালমা বেগম।

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম উপস্থিত সকলকে অভিনন্দন জানিয়ে নারী আন্দোলনের অগ্রদূত প্রয়াত নারীনেত্রীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তিনি বলেন ১৯৯৫ সালের বেইজিং ঘোষণা আমাদের দেশে এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। আমরা তা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছি এবং যতদিন পর্যন্ত তা বাস্তবায়িত না হবে আমরা তার জন্য কাজ করে যাব। তিনি আরও বলেন, বেগম রোকেয়া আমাদের দেশে নারী আন্দোলনের সূচনা করে গেছেন। তারই হাত ধরে এদেশের নারী অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করে যাব। পহেলা বৈশাখে নারীদের লাঞ্ছিত করা এবং পুলিশের ভূমিকা নিয়ে তিনি তীব্র ক্ষোভ ও হতাশা ব্যক্ত করেন এবং সমাজের সকলকে এ ধরনের ঘটনার প্রতিবাদে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

BMP Organization 1

স্বাগত বক্তব্যে সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু বলেন, সংগঠনের ৪৫ বছরের এ পর্যায়ে এসে আমরা বলতে পারি এদেশের নারী নারীসমাজের আত্মবিশ্বাস, দায়িত্ববোধ, কর্তব্যবোধ জাগ্রত করতে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ একটি সহায়ক ভূমিকা পালন করতে চেষ্টা করেছে এবং কিছুটা হলেও সফল হয়েছে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় নীতিমালা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ভূমিকা পালন করে আসছে এবং ভবিষ্যতেও করবে। নারী নির্যাতন প্রতিরোধ, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ জোরালো ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের নারীদের অর্জন ও সফলতার কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, এদেশের নারীরা রাজনীতি, সমাজনীতি ও অর্থনীতি সকলক্ষেত্রেই ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। কিন্তু তার যথার্থ মূল্যায়ন হচ্ছে না। নারী আন্দোলনের যে অর্জন সেটা আজ ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পহেলা বৈশাখে বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনাকে ন্যাক্কারজনক ও বর্বরোচিত উল্লেখ করে এর যথাযথ বিচারের দাবি জানান।

BMP Organization 3

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাখী দাশ পুরকায়স্থ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের পক্ষ থেকে সংগঠনের ৪৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে উপস্থিত সকলকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন ১৯৭০ সাল থেকে কবি সুফিয়া কামালের নেতৃত্বে যাত্রা শুরু করে একবিংশ শতাব্দীতে আজ এ পর্যাযে এসে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। তাই যারা তিল তিল করে এ সংগঠন গড়ে তুলেছেন, সে সকল সংগঠকদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। তিনি বলেন, ১৯৭০ সাল থেকে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ যখন কাজ শুরু করে তখন তরুণরা একে এগিয়ে নিয়ে গেছে। তাই বর্তমান সময়ে সংগঠনকে এগিয়ে নিয়ে যাওযার জন্য তিনি তরুণদের বলিষ্ট অংশগ্রহণের প্রতি আহ্বান জানান। ধর্ম-বর্ণ- শ্রেণী- গোষ্ঠী-নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলের অর্জন এই স্বাধীন বাংলাদেশ। তাই মৌলবাদের হাতে এ দেশকে ছেড়ে না দিয়ে সকলকে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

BMP Organization 4

BMP Organization 5

বিশেষ অতিথি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে সফলতার সাথে টিকে আছে। এজন্য তিনি সংগঠনের সকল সংগঠকদের অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এদেশের নারীজাগরণ ঘটিয়েছে। কিন্তু এ মুহূর্তে পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে নারীর প্রতি যে শ্লীলতাহানীর ঘটনা ঘটেছে, তার তীব্র নিন্দা জানান তিনি। পাশাপাশি বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নারী নির্যাতন ও নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে কাজ করছে এবং ভবিষ্যতেও করে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ইউএন উইমেনের কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ মিজ. ক্রিস্টিন সুশান হান্টার বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের ৪৫ তম প্রতিষ্ঠাবষিকী উপলক্ষে সকলকে শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন, নারীর অধিকার মানবাধিকার। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নারীর অধিকার আদায়ের জন্য দীর্ঘদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে, যা সত্যিই প্রশংসনীয়। সবশেষে তিনি বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের এই কাজকে এগিয়ে নেওয়ার আহ্বান জানান।

BMP Organization 6

BMP Organization 7

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাংবাদিক শাহানাজ মুন্নী বলেন, সাফল্যের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে টিকে থেকে ধারাবাহিকভাবে একটি সংগঠনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সত্যিই একটি বিশাল ব্যাপার। পহেলা বৈশাখে ঘটে যাওয়া ঘটনাকে আমাদের জন্য লজ্জার ও ন্যাক্কারজনক বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, যারা নারীকে বের হয়ে আসার জন্য বাধা দেয়, নারীকে থামিয়ে দিতে চায় তারাই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। তিনি এদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেন। তিনি বলেন, নারীর উন্নয়ন হচ্ছে কিন্তু ক্ষমতায়ন হয়তো হয়নি, নারী উন্নয়নের মানে সমাজের উন্নয়ন, নারীর জয় মানে সমাজের জয়। সব শেষে নারীর উন্নয়নের জন্য তিনি সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে আদিবাসী নারী মুনমুন নকরেক, কৃষক নারী হেনা বেগম, শ্রমিক নারী হেপী রানী কর্মক্ষেত্রে তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন। পাশাপাশি এ সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার আশা ব্যক্ত করেন।

 

অনুষ্ঠানে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির নেত্রীবৃন্দ ও তৃণমূলের সংগঠকসহ দেড় সহস্রাধিক উপস্থিতি ছিল।

About Bangladesh Mahila Parishad

One Comment

  1. Jorge

    July 21, 2015 at 5:59 pm

    A wonderful job. Super helpful inoiamrtofn.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>